বিএনপির অপরাজনীতির বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ : কাদের

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ কখনোই বিএনপির বিরুদ্ধে নয়, তাদের নেতিবাচক ও অপরাজনীতির বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ।’

ওবায়দুল কাদের আজ শনিবার নোয়াখালীর চৌমুহনী পৌরসভার উদ্যাগে নবনির্মিত পৌরপার্ক ও টার্মিনালের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে একথা বলেন। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন।

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র উন্নয়ন ও অর্জনের কথা বললেই বিএনপির গাত্রদাহ হয়। আওয়ামী লীগ কখনোই বিএনপির বিরুদ্ধে নয়, তাদের নেতিবাচক ও অপরাজনীতির বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ। ’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ৭৫ এর খুনী ও খুনের মদদদাতা, গ্রেনেড হামলার খুনের মাস্টারমাইন্ড ও সাম্প্রদায়িক অপশক্তি বগলে নিয়ে যারা দেশের রাজনীতিকে বিষাক্ত করেছে তাদের কাছে শেখ হাসিনার উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির কথা শুনতে ভালো না লাগাই স্বাভাবিক। শেখ হাসিনার উন্নয়নের কথা শুনলে ‘হাওয়া ভবন তন্ত্রের’ কুশীলবদের গাত্রদাহতো হবেই।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক নাকি বিএনপির বিরুদ্ধে কথা বলে- বিএনপি মহাসচিবের এমন বক্তব্যের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিদিন চিরাচরিত মিথ্যাচারের ভাঙ্গা রেকর্ড বাজিয়ে তাদের এখন শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে বিষোদগার করাই হচ্ছে রোজনামচার অংশ।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রসংশায় বিশ্ব সমাজ যখন পঞ্চমুখ তখন বিএনপির সহ্য হয় না, মনের যন্ত্রণা বেড়ে যায়। দেশের জনগণ এখন শেখ হাসিনার অর্জনের কথা যেমন শুনতে চায়, তেমনি বলতেও চায়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, রাজপথের রাজনীতিতে বিএনপিকে এখন হাজার পাওয়ারের বাতি জ্বালিয়েও খুঁজে পাওয়া যায় না। তাদের রাজনীতি এখন ফেসবুক স্ট্যাটাস ও গণমাধ্যমেই সীমাবদ্ধ।

বিএনপি মহাসচিবকে একজন সজ্জন মানুষ হিসেবে উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, তিনিতো নিজের কথা বলেন না,শুধু রিলে করেন, তিনি হচ্ছেন পুতুল নাচের পুতুল। অন্ধকার থেকে সুতোর টানে চলে বিএনপির অপরাজনীতি আর লিপ সার্ভিস।

এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ দেউলিয়া হয়নি, বরং অতীতের যে কোন সময়ের চেয়ে অধিকতর শক্তিশালী, সুসংগঠিত এবং জনঘনিষ্ট।

বিএনপিতে সেদিন দেউলিয়া হয়েছে, যেদিন তারা তাদের গঠনতন্ত্র থেকে দুর্নীতি বিরোধী ৭ ধারা বাতিল করেছে জানিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, চিহ্নিত দুর্নীতিবাজদের দলের দায়িত্ব দিয়ে সেদিনই বিএনপি দলের অপমৃত্যু ঘটিয়েছে।

নোয়াখালীর সাম্প্রতিক ঘটনা সম্পর্কে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, উন্নয়ন যতই হোক সবকিছু ম্লান হয়ে যায় দু’একটা নেতিবাচক ঘটনায়। যে কোন অপরাধের বিরুদ্ধে সরকারের অবস্থান অত্যন্ত কঠোর এবং স্পষ্ট। গুটিকয়েক অপরাধীর জন্য সরকারের উন্নয়ন অর্জন ম্লান হতে পারে না।

ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের অদম্য গতিতে যে এগিয়ে যাওয়া, তার প্রভাব নোয়াখালীতেও পড়েছে। যোগাযোগ অবকাঠামো উন্নয়নে ফেনী হতে বেগমগঞ্জ এবং বেগমগঞ্জ থেকে সোনাপুর সড়ক চারলেনে উন্নীতকরণের কাজ এগিয়ে চলছে।

নোয়াখালীর প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের উদ্দেশ্য মন্ত্রী বলেন, জেলার বিভিন্ন স্থানে গড়ে উঠা জনগণের শান্তি ও স্বস্তি বিনষ্টকারী সামাজিক অপরাধীদের আইনের আওতায় আনতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *